“নবায়নযোগ্য জ্বালানির প্রসারে প্রয়োজন নিয়মিত অর্থযোগান” - বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

“নবায়নযোগ্য জ্বালানির প্রসারে প্রয়োজন নিয়মিত অর্থযোগান” - বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

সিলেট-১৬.০৪.২০১৭

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, নবায়নযোগ্য জ্বালানির প্রসারে প্রয়োজন নিয়মিত অর্থযোগান। নবায়নযোগ্য জ্বালানি ব্যয়বহুল বিধায় প্রাথমিকভাবে স্বল্প সুদে বা বিনা সুদে অর্থায়ন প্রয়োজন। পরিবেশ বান্ধব জ্বালানি ব্যবহার বাড়াতে পরলে এসডিজি অর্জন সহজতর হবে।

প্রতিমন্ত্রী, আজ সিলেটে “টেকসই জ্বালানি প্রসারে গ্রিন ব্যাংকিং এর ভুমিকা” শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, টেকসই ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশে নবায়নযোগ্য জ্বালানির প্রসার, উৎপাদন ও ব্যবস্থাপনা এবং জ্বালানির দক্ষতা অর্জনে কাজ করছে। পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি বিস্তার করার জন্য পরিবেশবান্ধব অর্থায়ন বা গ্রিন ব্যাংকিং কার্যক্রম আরো বাড়ানো প্রয়োজন। বাংলাদেশ ব্যাংকের এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা দেয়া দরকার। বাংলাদেশে পরিবেশবান্ধব অর্থায়ন সহায়ক অবকাঠামো তৈরি শুধু টেকসই জ্বালানি উন্নয়নের জন্যই নয়, বরং সামগ্রিকভাবে পরিবেশ উন্নয়ন এবং পরিবেশবান্ধব ও টেকসই অর্থনীতির  দিকে দেশের অগ্রযাত্রায় গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করবে।
জার্মান আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা (জিআইজেড) টেকসই ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ এবং বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট (বিআইবিএম) যৌথভাবে এ কর্মশালা আয়োজন করে। এ উদ্যোগের  মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন এলাকায় ব্যাংক এবং আর্থিক সংস্থার প্রতিনিধিদের  প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। সিলেটে অনুষ্ঠিত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে টেকসই জ্বালানি উন্নয়নের প্রয়োজনীয়তা বিষয়ে অংশগ্রহণ-কারীদের সচেতনতা তৈরি ও তথ্য প্রদান এবং পরিবেশবান্ধব অর্থায়নের ক্ষেত্রে তাদের দক্ষতা বৃদ্ধির উপর জোর দেয়া হয়েছে। সরকারের গৃহীত গ্রিন ব্যাংকিং নীতিমালা ও বিভিন্ন কার্যক্রমের সাফল্য নিশ্চিত করা এবং দেশে পরিবেশবান্ধব অর্থায়নের উপযোগী অবকাঠামো তৈরির জন্য এ ধরনের প্রশিক্ষণ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে অংশগ্রহণকারীরা মতামত প্রদান করেছেন।
বিআইবিএম‘র মহাপরিচালক ড. তৌফিক আহমেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মাঝে  স্রেডার চেয়ারম্যান মোঃ হেলাল উদ্দিন, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্ণর এস.কে সুর চৌধুরী, সেলেটের জেলা প্রশাসক মোঃ রাহাত আনোয়ার এবং বাংলাদেশে জার্মান দুতাবাসের ডেপুটি হেড অব মিশন মাইকেল শুলখেই বক্তব্য রাখেন।